ক্যাটাগরিসমূহ
শক্তি পীঠ

কালীঘাট শক্তিপীঠ( দ্বিতীয় পর্ব )


No imageপীঠমালা তন্ত্র শাস্ত্র গ্রন্থে
কালীঘাট সম্বন্ধে লিখিত আছে
যে-
দখিণে শ্বরমারভ্য যাবচ্চ
বহুলাপুরী,
ধনুকাকার ক্ষেত্রঞ্চ
যোজনদ্বয় সংখ্যকং ।
তস্মাৎ ত্রিকোনাকারঃ
ক্রোশমাত্র ব্যবস্থিত,
ত্রিকোণে ত্রিগুণা কারো
ব্রহ্মাবিষ্ণু শিবাত্মকং,
মধ্যে চ কালিকাদেবী মহাকালী
প্রকীর্তিতা ।
ভৈরব নকুলেশ্বরো যত্র গঙ্গা
বিরাজিতা,
তত্রক্ষেত্রং মহাপুণ্যং
দেবানামপি দুর্লভং ।
কালীক্ষেত্র কাশীক্ষেত্র
অতোদোহপি,
কীটোহপি মরণে মুক্ত কিং পুনঃ
মহেশ্বর মনবাদয় ।
ভৈরবী বগলা বিদ্যা মাতঙ্গী কমলা
তথা
ব্রাহ্মী মহেশ্বরী চণ্ডী চাষ্ট
শক্তি বসেৎ যদা ।
অর্থাৎ- বহুলা থেকে ধনুকাকার
দুই যোজনব্যাপী জায়গাটি হল
কালী ক্ষেত্র । এই ত্রিকোন
আকার জায়গার ভেতরে তিনটি
কোনে ত্রিগুনাত্মক ব্রহ্মা,
বিষ্ণু ও মহেশ্বর এবং এর মধ্য
খানে মহাকালী কালিকা দেবী
অবস্থান করেন । তাই এই জায়গা
কাশীর মতোই মহাপুন্য ক্ষেত্র ।
এখানে ভৈরবী, বগলা, বিদ্যা ,
মাতঙ্গী, কমলা, ব্রাহ্মী,
মহেশ্বরী ও সনাতনী চণ্ডী
সর্বদাই বিরাজ করেন । এখানে
কীট পতঙ্গ মরলেও সঙ্গে সঙ্গে
তারা মুক্তি পেয়ে যায় ।
কালীঘাট পীঠ কিভাবে গড়ে
উঠেছিল – সেবিষয়ে অনেক
কাহানী শোনা যায় । যশোরের
রাজা প্রতাপাদিত্য এর খুল্লতাত
বসন্ত রায় একটি ছোট্ট মন্দির
এখানে প্রথম নির্মাণ করেন ।
সেই সময় দেবীর পূজারী ছিলেন
ভুবনেশ্বর ব্রহ্মচারী । তিনি
অপুত্রক ছিলেন তাঁর দৌহিত্র
হালদার রা পূজা করতে লাগলেন।
এখনও সেই প্রথা আছে । বরিশার
সাবর্ণ চৌধুরীর পরিবারের
সন্তোষ রায় পঁচিশ হাজার টাকা
ব্যায় করে মন্দির নির্মাণ শুরু
করেন । তারপর তাঁর পুত্র রামনাথ
রায় এবং ভাতুস্পুত্র
রাজীবলোচন রায় ১৮০৯ খ্রীঃ
মন্দির নির্মাণ সম্পূর্ণ করলেন ।
মন্দির লাগোয়া নাটমন্দির
নির্মাণ করেছিলেন আন্দুলের
জমিদার কালীনাথ রায় । নহবত
খানা আর ভোগের ঘর নির্মাণ
করেছিলেন গোরক্ষপুরের টীকা
রায় । ইষ্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানী
মন্দিরের জন্য দুশো বিঘা জমি
দান করেছিলেন ।
সেসময় ভারতবর্ষে ব্রিটিশ
বিস্তৃতি শুরু হয়েছে । ব্রিটিশ
আগমনের সাথে সাথে খ্রীষ্টান
পাদ্রী গন ভারতে চলে আসেন ।
তাঁরা সমানে সনাতন হিন্দু ধর্মের
নিন্দা করে ছলে বলে কৌশলে
হিন্দুদের খ্রীষ্টান বানাতে
লাগলেন । মাকালীর নিন্দা তথা
হিন্দু দেব দেবীর নিন্দা ছিল তাদের
হাতিয়াড় ।
( চলবে )

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.