ক্যাটাগরিসমূহ
শক্তি পীঠ

কামাখ্যা শক্তিপীঠ


No image৫১ শক্তিপীঠের সব কটি পীঠেই
মা জগদম্বা ভৈরব সহিত রয়েছেন
। সন্তান দের জন্য বিলিয়ে
দিয়েছেন মাতৃস্নেহ । ব্রহ্মময়ী
আদিশক্তির সাথে আমাদের
সম্পর্ক সন্তান আর মায়ের
সম্পর্ক । আমাদের মা। সামান্য
কীট পতঙ্গ থেকে শুরু করে
দেবতাদের মা। ৫১ পীঠের মধ্যে
সবচেয়ে উল্লেখ্য পীঠ- এবং
সাধনার স্থান পীঠ হল কামাখ্যা
পীঠ । ভারতবর্ষের আসাম
রাজ্যের রাজধানী গৌহাটির
কাছেই নীল পর্বতে এই পীঠ
অবস্থিত । কালিকাপুরান, দেবী
ভাগবত পুরান, তন্ত্র শাস্ত্র
গুলিতে এই পীঠের অসীম
মাহাত্ম্যের কথা বর্ণিত হয়েছে ।
ভগবান বিষ্ণুর চক্রে খন্ডিত হয়ে
মহাদেবী মা সতী দেবীর যোনি দেশ
এই স্থানে পতিত হয়েছিল । দেবীর
নাম কামাখ্যা, আর ভৈরবের নাম
উমানন্দ । বৃহদ্ধর্ম পুরান বলে
তীর্থচূড়ামণিস্তত্র যত্র যোনিঃ
পপাত হ ।
তীরে ব্রহ্মনদাখাস্য
মহাযোগস্থলং হি তৎ ।।
অর্থাৎ- যে স্থানে দেবীর যোনি
পতিত হয়েছিল, সেই স্থান তীর্থ
চূড়ামণি । স্থানটি ব্রহ্মপুত্র
নদের তীরে । মহাযোগস্থল বলে
জগতের জন্য হিতকর ।
তস্মিংস্তু কুব্জিকাপীঠে
সত্যাস্তদ্ যোনিমণ্ডলম্ ।
পতিতং তত্র সা দেবী মহামায়া
ব্যলীয়ত ।।
লীনায়াৎ যোগনিদ্রায়াং ময়ি
পর্বতরূপিণী ।
স নীলবর্ণঃ শৈলহভুৎ পতিতে
যোনিমণ্ডলে ।।
কালিকা পুরান/ দ্বিষষ্টিতম্
অধ্যায়
যে স্থলে দেবীর যোনিমণ্ডল
পতিত হয় , তাহার নাম কুব্জিকা
পীঠ এবং মহামায়া দেবীও সেই
পীঠেই বিলীন হইয়া থাকেন। এই
পর্বতে দেবীর যোনিমণ্ডল পতিত
হওয়ায় ইহা নীলবর্ণ হইয়াছিল ।
এই জন্য এই পর্বত নীলাচল নামে
বিখ্যাত ।
সত্যাস্ত পতিতং তত্র বিশীর্ণং
যোনিমণ্ডলম্ ।
শিলাত্বমগমচ্ছৈলে কামাখ্যা
তত্র সংস্থিতা ।।
সংস্পৃশ্য তাং শিলং মর্ত্যো
হ্যময়মরাপ্লুয়াৎ ।
অনর্ত্যো ব্রহ্মসদনং তৎস্থো
মোক্ষমবাপ্লুয়াৎ ।।
কালিকা পুরান / দ্বিষষ্টিতম্
অধ্যায়
অর্থাৎ – সতীর বিশীর্ণ
যোনিমণ্ডল নীলাচলে পতিত হয়ে
প্রস্তরত্ব প্রাপ্ত হয়েছে। সে
প্রস্তর ময় যোনিতে কামাখ্যা
দেবী অবস্থান করেন। সে মনুষ্য
ঐ শিলাকে স্পর্শ করে , সে
অমরত্ব ( এখানে অমর বলতে
দীর্ঘায়ু ও সুস্থ জীবনের উপমা
দেওয়া হয়েছে) পায় ও অমর হইয়া
ব্রহ্ম সদনে অবস্থান করতঃ
পরিণামে মোক্ষ লাভ করে ।
তত্রত্যা দেবতাঃ সর্বাঃ
পর্বতাত্মকতাঃ ।
পর্বতেষু বসন্ত্যেব দেবতা অপি
।।
তত্রত্যা পৃথিবী সর্বা দেবীরূপা
স্মৃতা বুধৈঃ ।
নাতঃ পরতরং স্থানং
কামাখ্যাযোনিমণ্ডলাৎ ।।
দেবী ভাগবত/ ৭ ম স্কন্ধ/
অষ্টত্রিংশ অধ্যায়
অর্থাৎ- নীলাচলে দেবতা সকলে
পর্বত রূপে অবস্থিত আছেন এবং
অপরাপর প্রধান প্রধান দেবতা
সেই সেই পর্বতে অধিষ্ঠান
করিতেছেন । অধিক কি বলিব সেই
স্থানে অখিল ভূ ভাগকেই বুধ গণ
দেবী স্বরূপ বলিয়াছেন । বস্তুত
উক্তঃ কামাখ্যাযোনিমণ্ডল
অপেক্ষা প্রশস্ত স্থান আর
দ্বিতীয় নেই ।
এই হল কামাখ্যা পীঠের বিবরণ ।
অসম রাজ্য তথা কামাখ্যা
মানুষের কাছে আজও কৌতূহলের
বিষয় । লোক প্রবাদ অনুযায়ী
এখানকার আদি বাসিন্দা গন
নানারকম যাদু বিদ্যায় পারদর্শী ।
এখানে তালা পাতায় লিখিত বা
মন্দিরে খোদিত বিভিন্ন তন্ত্র
মন্ত্র এখনও দেখা যায়। তাই
অসম ও কামাখ্যা মন্দির নিয়ে
মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই ।
( চলবে )

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.