ক্যাটাগরিসমূহ
শক্তি পীঠ

মানস সরোবর শক্তিপীঠ (দ্বিতীয় পর্ব )


No imageমানস সরোবর এর সেই পবিত্র কুণ্ডই দেবী পীঠ। এখানকার প্রাকৃতিক দৃশ্য বড়ই মনোরম । দেবী মহামায়াকেই আদ্যাশক্তি পরমাপ্রকৃতি বলে। নিখিল প্রকৃতি সেই আদিভূতা সনাতনীর নিরাকার রূপ। এই শক্তি নিরাকারা । পুনরায় তিনি দুর্গা, কালী, চণ্ডী মূর্তিতে সাকারা । মানস সরোবরের সেই পর্বত চূড়া মনকে মোহিত করবে আপনার । তিব্বতে প্রচুর সন্ন্যাসী সাধক দেখা যায় । দেবী দাক্ষায়ণী ছিলেন দক্ষ প্রজাপতির কন্যা । প্রজাপতি ব্রহ্মার আদেশে দক্ষ আর তাঁর পত্নী বিরনী মহামায়ার কঠোর তপস্যা করেন। মহামায়া সন্তুষ্ট হয়ে তাঁদের বর দিলেন- কন্যা রূপে দক্ষ মহলে আসবেন । মহাদেবী জন্ম নিলেন। তাঁর নাম সতী। কালক্রমে সতী দেবীর সাথে ভগবান শিবের বিবাহ হল। এরপর দক্ষের সাথে মহাদেবের বিরোধ হয়। দক্ষ শিব হীন যজ্ঞ করতে চাইলে মহাদেবী সতী এই অশাস্ত্রীয় যজ্ঞ বন্ধ করার সংকল্প করেন । কারন শিব হীন যজ্ঞ অশাস্ত্রীয় । শাস্ত্র বিধান না মেনে পূজা করলে তাঁর ফল স্বরূপ ধ্বংস নেমে আসতে পারে। সে যে কোন পূজাই হোক । তাই মহাদেবী এই যজ্ঞ বন্ধ করার জন্য যজ্ঞে প্রান দিয়েছিলেন। পুরানে বলে শিব নিন্দা, স্বামী নিন্দা সহ্য করতে না পেরে দেবী সতী আত্ম বিসর্জন দিয়েছিলেন । দুর্গা পূজার সময় “দক্ষযজ্ঞবিনাশৈ ন্যই” নামে মাকে পূজা করা হয় । মা নিজেই দক্ষের যজ্ঞ ধ্বংসের পথ তৈরী করেছিলেন। শক্তির নাশ হয় না। পরজন্মে তিনি মা গৌরী রূপে এলেন। এক কোটি যোগিনী মাকে সেবা করেন । মানস সরোবরের এখানে কৈলাশ চূড়া বৈচিত্রময়। ঐ সব পাহাড়ের মাথা থেকে নেমে এসেছে সারি সারি বিপুল ঝরনা । কোন কোনটি আবার ৬০০-৭০০ ফুট ওপর থেকে ভূপৃষ্ঠে পতিত হয়েছে। ভক্ত মানুষের বিশ্বাস এখানে স্বর্গের দেবতা দেবী, গন্ধর্ব, অপ্সরা গন এখানে আসেন । রাত্রি সময় আকাশে শশীর আলোকে এই স্থান আরো সুন্দর ও আকর্ষণীয় লাগে। মনে হয় যেনো সত্যই দেবতারা নেমে এসেছেন। তাইতো এত মধুর ভাবে চারপাশ সেজে উঠেছে । মানস সরোবরের পশ্চিম দিকে কিছু গুহা আছে। বর্তমানে এগুলি গুম্ফা হয়েছে। বৌদ্ধ সন্ন্যাসী গন এখানে থাকেন । এই সরোবরেই মা ভবানী তাঁর অপূর্ব স্নেহ সুধা ঢেলে দিয়েছেন। বিশ্ব জননী যেমন সৃষ্টি করেন, পালন করেন, আবার দুরাত্মা অসুর দের নাশের জন্য বারংবার আবির্ভূতা হন । যখন ব্রহ্মা, বিষ্ণু, মহেশ্বর আসুরিক শক্তি নাশ করতে পারেন না- তখন মহাশক্তির আবির্ভাব হয় । তিনি দানব ধ্বংস করে ধর্ম সংস্থাপন করেন । অন্তিমে আমরা মাকে প্রনাম জানাই। দারুকাসুর বধের পর দেবতারা যে স্তবে মাকালীকে বন্দনা করেছিলেন- সেই স্তব টি আপনাদের সামনে তুলে ধরবো। দারুকাসুর বধের ঘটনা অন্য এক সময় শোনাবো। প্রবল অত্যাচারী দারুকাসুরের পতনে স্বর্গের দেব দেবীগণ অতিশয় আনন্দিত। তাঁরা করজোড়ে দেবী চণ্ডীকার বন্দনা করছেন- হে শক্তিমাতা। তুমি সর্ব মঙ্গলা। তুমিই শিবা। তোমার করুণাতে বিপদের সাথে সাথে সকল প্রকার পাপের নাশ হয়। হে চণ্ডীকে। তোমার নাম স্মরণ মাত্র সকল দুর্গম ভাব সুগম হয়ে যায়। মা। দারুকাসুরকে বধ করে আপনি ধর্ম সংস্থাপন করেছেন। মা তোমাকে প্রনাম জানাই। হে জগন্মাতা । তুমি সমস্ত শুভ কর্মের সূচক। তাই সকল কর্মের আগে তোমার নাম উচ্চারণ করলে সে কর্ম সফল হবে। হে দেবী। কৃপা করো। আমার মুখে যেনো সর্বদা তোমার নাম কীর্তন হয় । হে দেবী। তুমি যুদ্ধে চামুণ্ডা ও শিবদূতী নামক দেবী রূপ ধারন করে পাপী অসুর দের নাশ করেছো । হে উগ্র চণ্ডীকে । তুমি চণ্ডনায়িকা। মহাচণ্ডেশ্বরী । তোমার আশীর্বাদ সকলের ওপর বর্ষণ হোক। হে অভয়দায়িনী। তুমি ত্রিপুরভৈরবী। তুমি অনন্তা। প্রতিটি জীবের মধ্যে যে শক্তি আছে তা তোমারই দান । হে মহামায়া। স্বর্গ, রাজ্যপাট হারিয় আমরা ছন্নছাড়া হয়েছিলাম। তুমি আমাদের সকল দুঃখের নাশ করেছো। তোমার কৃপা হলে পথের ভিক্ষুকও ছত্রপতি রাজা হতে পারে। হে মাতঃ। তুমি অত্যাচারী দৈত্য গনের নাশ করে ধরণীকে অত্যাচার মুক্ত করেছো। সমগ্র বিশ্ব তোমারই স্তব করছে। আমরা তোমাকে বারবার প্রনাম করি। হে আদিশক্তি। তুমিই সনাতনী। সমস্ত শক্তির উৎস তুমি। সকল বস্তুই তোমার অধীন। তুমি সকলকে সব অভীষ্ট প্রদান করো। তুমি লক্ষ্মী রূপে ধন জন দাও, আবার অলক্ষ্মী রূপে পাপীদের সংসার নাশ করো। হে চামুণ্ডে।হে ত্রিপুরমালিনী। সমস্ত শক্তি সব তোমার অধীনে থাকে। তুমি তুষ্টা না হলে কোন প্রকার সিদ্ধি প্রাপ্তি ঘটে না। তোমার কৃপাতেই সিদ্ধি লাভ ঘটে। তোমাকে প্রনাম। হে আদ্যাশক্তি। তোমার ইচ্ছাতেই সমস্ত কিছু সঞ্চালিত হয়। তোমার ইচ্ছা ভিন্ন গাছের পাতা নড়া তো দূর- পবন তাঁর নিজ স্থান পরিবর্তন করতে পারে না। তোমার আশীর্বাদে যেনো সকলের জীবন ধন্য হয় ।
( সমাপ্ত। আগামী পর্বে থাকবে বিরজা শক্তিপীঠ )

মন্তব্য করুন

Please log in using one of these methods to post your comment:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.